শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় দলিল নিবন্ধনে ভোগান্তি

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলায় সাবরেজিস্ট্রার না থাকায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন জমির ক্রেতা ও বিক্রেতারা। সপ্তাহে এক দিন অফিস চলায় সরকার হারাচ্ছে মোটা অঙ্কের রাজস্ব। অন্যদিকে উপজেলার সাবেক সাবরেজিস্ট্রার অভিজিত কর দায়িত্বপ্রাপ্ত থাকা অবস্থায় দুই শতাধিক দলিলে তার স্বাক্ষর না থাকায় দলিল ডেলিভারি দিতে পারছে না সাবরেজিস্ট্রার অফিস। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। 

জানা গেছে, সাবরেজিস্ট্রার অভিজিত করের বদলিজনিত কারণে পদ শূন্য থাকায় জমি রেজিস্ট্রি বন্ধ হয়ে যায়। পরে শিবালয় উপজেলার সাবরেজিস্ট্রার আশিষ কুমার সরকারকে এই অফিসের অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রদান করা হয়। তিনি সপ্তাহে এক দিন অফিস করেন। ফলে দলিল রেজিস্ট্রি নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হয়।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা সেবাপ্রার্থীরা জানান, সপ্তাহে এক দিন জমি রেজিস্ট্রি হয়, এতে জমির ক্রেতা ও বিক্রেতারা অনেকে জমি বেচাকেনার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।

দলিল গ্রহীতারা জানান, তারা এক বছর আগে দলিল করেছেন। দলিল আনার জন্য সাবরেজিস্ট্রার অফিসে গেলে বলা হয়, তৎকালীন সাবরেজিস্ট্রার দলিলে স্বাক্ষর না করে অন্য জেলায় বদলি হয়েছেন। তিনি এক দিন এসে দলিলে স্বাক্ষর করলে দলিল ডেলিভারি দেওয়া হবে। এ বিষয়ে দলিল লেখকরা জানিয়েছেন, সপ্তাহে এক দিন জমি রেজিস্ট্রি করতে গেলে নানা ভোগান্তির শিকার হতে হয়। ব্যাংক ড্রাফট, জমির কাগজপত্র ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জোগাড় করতেই বেলা শেষ হয়ে যায়। ঐদিন কোনো কারণে জমির দলিল না হলে, পরের সপ্তাহের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। এ কারণে জমির মালিকরা জমি বেচাকেনায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। ফলে সরকার মোটা অঙ্কের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পাশাপাশি দলিল লেখকরাও বেকার হয়ে পড়ছেন।

পোস্টটি শেয়ার করুন