শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

এথিস্ট নোট নামক একটি ম্যাগাজিনে ধর্ম অবমাননা করবার অভিযোগে গত ২৫ অক্টোবর ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে হেফাজতে ইসলামীর কর্মী মামুনুল হক বাদী হয়ে  একটি ধর্ম অবমানার মামলা দায়ের করেছেন। মামলার মূল আসামী খায়রুল্লা খন্দকার সহ আরো ১০ জন। সোমবার দুপুরে এই মামলা করা হয় বলে আমাদের আদালতের প্রতিনিধি জানান। মামলার নাম্বার ৭৮৫/২০২২।

আদালত সূত্রে জানা যায় মামলার বাদী মামুনুল হক “এথিস্ট নোট” নামক একটি ইসলাম বিদ্বেষী ম্যগাজিনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২৮ ধারাতে ধর্ম অবমাননার মামলা দাখিল করেন। এই মামলায় খায়রুল্লা খন্দকার নামক সম্পাদককে মূল আসামী দেখানো হয়। উল্লেখ্য খায়রুল্লা খন্দকার ও এথিস্ট নোট উভয়ের বিরুদ্ধে অনেক আগে থেকেই ব্লগে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ রয়েছে।

আরো জানা যায় যে এই উক্ত ম্যাগাজিনটি দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশের শান্তি প্রিয় ইসলামী জনতার আবেগের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কদর্য ভাষায় ইসলামকে আক্রমণ করে লেখালেখি চালিয়ে আসছে। খায়রুল্লা খন্দকার সম্পাদিত এই ম্যাগাজিনটির বিরুদ্ধে ইসলাম বিদ্বেষের অভিযোগ বেশ পুরোনো। এই মামলাতে সর্বমোট  ১১ জন ব্যাক্তিকে আসামী করা হয়।  রেহানা আক্তার, জেরিন সুলতানা সানরামনি, তোয়াহা তাশদিক ফিজা, অরুনাংশু চক্রবর্তী , সোহাগ শংকরী, অনুপ চক্রবর্তী, এম ডি সাইফুর রহমান, জেসিকা রাখি গোমেজ, চিন্ময় দেবনাথ, জয় বিশ্বাস প্রমুখ।

এই ব্যাপারে বাদী মামুলুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “এই নোট” ম্যাগাজিনটি ইসলামের শত্রু। এইখানকার লেখকেরা ক্রমাগতভাবে প্রতিদিন ইসলামকে নানাভাবে অপমান ও অপদস্ত করে যায় কিন্তু সরকার কিংবা তাদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় একটি কথাও বলে না”

তিনি আরো বলেন, “আল্লাহর জমিনে কোনো নাস্তিকের বাচ্চার ঠাঁই হবে না। আর খায়রুল্লা খন্দকার ও তাঁর সহযোগী লেখকদের দেশে নিয়ে এসে প্রকাশ্যে বায়তুল মোকাররম মসজিদের সামনে শিরচ্ছেদ করতে হবে”

বাংলাদেশে তো প্রকাশ্যে শিরচ্ছেদের আইন নেই বা পদ্ধতি নেই তাহলে তিনি কেন এমন দাবী করছেন, এই প্রশ্নের জবাবে জনাব মামুনুল হক বলেন, ৯৮% মুসলমানের দেশে শরীয়া আইন করতে হবে, তা না হলে এই দেশে কোন সরকার টিকে থাকবে না।

এই ব্যাপারে মূল আসামীদের কারো সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়ে উঠেনি। এদিকে এই ঘটনার রেশ ধরে গতকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ছিলো অত্যন্ত সরব। সেখানে নানাবিধ মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

এই ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা এই ব্যাপারে কোনো রকমের মন্তব্য করা হবে না বলে আমাদের প্রতিবেদককে জানান।

পোস্টটি শেয়ার করুন